Passive Income Ideas 2021/ Passive Income Ideas 2021.ইউনিক বিজনেস আইডিয়া ২০২১


ঘুমিয়ে থাকলেও  টাকা আসবে এমন ১০ টি বিজনেস/ব্যবসায় আইডিয়া শেয়ার করব আজকে। যাকে এককথায় Passive Income বলা যায়। Passive Income শুরু করার অনেক উপায় রয়েছে।কিছু আইডিয়া সম্পর্কে আপনি আগে থেকেই জানেন আবার হয়ত কিঠু জানেন না ।একটি সফল Passive Income বিজনেস শুরু করতে অনেক শ্রম ও সময় দরকার হয়।শুরু করার পর সেটা মেইনটেইন করার জন্য অনেক কাজ  করতে হয়।প্রতিটি বিজনেস আইডিয়ার আলাদা কিছু সত্ত্বা রয়েছে।কিছু অনেক সহজ Passive Income এর সহজ ও কিছু জটিল উপায় রয়েছে ।যাইহোক দুটি উপায়েই তাড়াতাড়ি সফল হওয়া সম্ভব।তাহলে চলুন দেখা যাক Passive Income Ideas গুলো কি কি??


Passive Income Ideas 2021/ Passive Income Ideas 2021.ইউনিক বিজনেস আইডিয়া ২০২১,ইউনিক বিজনেস আইডিয়া ২০২১,নিউ বিজনেস আইডিয়া, সেরা বিজনেস আইডিয়া
Passive Income Ideas 2021/ Passive Income Ideas 2021.


Passive Income Ideas  গুলোর মধ্যে কিছু  অফলাইন বিজনেস ও কিছু অনলাইন বিজনেস রয়েছে।প্রথমেই আলোচনা করব অফলাইন Passive Income বিজনেস আইডিয়া শেয়ার করব।

অফলাইন বিজনেস আইডিয়াঃ-

১)বই লেখাঃ-বই লেখা Passive Income এর একটি প্রথাগত উপায়।আপনি বই লিখবেন সেটি কেউ প্রকাশ করলে,বই বিক্রির উপর ভিত্তি করে তা থেকে আপনার ইনকাম  হবে।এটি শত বছরের পুরানো একটি পদ্ধতি।আপনি যদি ভালো লেখক হন তবে আপনি গল্প,কবিতা,উপন্যাস লিখতে পারেন ।পরবর্তিতে লেখাগুলো ছাপিয়ে বিক্রি করে আয় করতে পারবেন । এটি Passive Income বিজনেসএর একটি জটিল উপায় এবং সময় সাপেক্ষ ব্যাপার ।তবে এটি দিয়ে অনেক বেশি আয় করা সম্ভব।

২)রিয়েল স্টেট বিজনেসঃ-হাতে বেশি টাকা থাকলে সেটা অলসভাবে ফেলে না রেখে কাজে লাগিয়ে ইনকাম করুন।প্রথৃবীর অনেক জায়গাতেই একটি ফ্লাট ভাড়া দিয়ে যে টাকা আসে তা কিস্তির টাকার চেয়ে বেশি হয়।তবে কিছু খরচ আছে।যেমনঃ-মেরামত করা । ঠিকমত দেখে বাড়ি কিনলে মেরামত করে ভাড়া দিয়ে,ভাড়ার টাকা দিয়ে কিস্তি পরিশোধ করেও লাভ থাকবে।যা দিয়ে পরবর্তিতে জায়গা কিনে ফেলতে পারেন ।মেরামত করতে হবে এমন জায়গা কিনে,নিজে মেরামত করে নিতে পারেন ।এতে করে নতুন বানানোর চেয়ে থরচ অনে কম পড়বে।

৩) জিনিসপত্র ভাড়া দেওয়াঃ-আপনার যদি কোন দামি জিনিস থাকে,তবে তা আপনার ব্যবহারের পর সেটি ভাড়া দিয়ে Passive Income করতে পারেন।ধরুন আপনার একটি DSLR ক্যামেরা রয়েছে ।আপার ক্যামেরাটি ছবি তোলার জন্য ভাড়া দিয়ে আয় করতে পারেন।আপনি যদি কয়েক লাখ টাকা দিয়ে ড্রোন ক্যামেরা কিনে থাকেন,তবে এই উপায়ে খুব সহজেই টাকা উসুল করে নিতে পারেন ।অনেকেই শর্ট-ফিল্ম তৈরি করে থাকেনে এবং তাদের ড্রোন ক্যামেরা প্রোয়জন হয়,তখন তারা ড্রোন ক্যামেরার দাম বেশি হওয়ায় ভাড়া নিয়ে থাকেন ।এমন কোন কিছুর মালিক আপনি হয়ে থাকলে ববিজনেস টি শুরু করতে পারেন ।

৪)সফল ব্যবসায় বিনিয়োগ করাঃ-আমাদের সকলেরই কোন না কোন বন্ধু থাকে,যে ব্যবসায় সফল হয়েছেন।অনেক সময় তাদের বিজনেস সম্প্রসারন করতে মূলধন থাকে না,এই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে আপনি Passive Income করতে পারেন।আপনার ও যদি এমন সফল বন্ধু থাকে তবে তার ব্যবসায় বিনিয়োগ করে আয করা শুরু করুন ।

৫)শেয়ার ক্রয় করাঃ- বিনিয়োগের একটি অন্যতম খাত হল শেযার ক্রয় করা।এটি যেমন ঝুঁকিপূর্ন তেমন ইনকাম অনেক বেশি।দেশের বড় বড় কোম্পানি গুলো শেয়ারের মাধ্যমে তাদের মূলধন সংগ্রহ করে থাকে।শেযার ক্রয়ের মাধ্যমে কোম্পানির একজন অংশীদার হিসাবে পদমর্যাদা লাভ হয় এবং কোম্পানি লাভ-ক্ষতির হিসাবে মুনাফা বন্ঠন করা হয়।শেযারে বিনিয়োগ করতে হলে একটু বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিতে হবে।ভালো ভালো কোম্পানির শেয়ার ক্রয়ের মাধ্যমে ঝুঁকি হ্রাস পায়।

অনলাইন বিজনেস আইডিয়াঃ-

১)অনলাইনে টি-শার্ট সেল করাঃ-বর্তমানে Passive Income এর একটি অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে অনলাইনে টি-শার্ট বিক্রি করা ।মানুষ দিন দিন অনলাইন নির্ভর হয়ে পরেছে ।অনলাইনে কেনাকাটা করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে।আপনি বিভিন্ন সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে এই ব্যবসায়টি করতে পারেন । যেমন ফেসবুক পেজ, ফেসবুক গ্রুপ,ইউটিউব,নিজস্ব ওয়েবসাইট খুলে ব্যবসায়টি শুরু করতে পারেন । Passive Income বিজনেস হিসাবে বিজনেসটি শুরু করতে পারেন।

২)স্টক ইমেজ সেলঃ- আপনি যদি প্রচুর ছবি তুলতে ভালবাসেন,তবে এটি পুজি করে আয় করতে পারেন ।ভালো ভালো ছবি তুলে স্টক ইমেজ সেল ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিক্রি করে Passive Income করতে পারেন ।এমন  একটি  ওয়েবসাইটের নাম হলো photodune.com

৩)স্ব প্রকাশিত ই-বুকঃ-ই-বুক বলতে ইলেকট্রনিক বই বুঝায়।অর্থাৎ অনলাইন ভিত্তিক বই।প্রথাগত প্রকশনার চেয়ে নিজ প্রকশনায় সুবিধা বেশি। এতে মার্কেট সাপোর্ট বেশি থাকে।কিন্তু একটা জিনিস মাথায় রাখতে হবে এটি অনেক কঠিন কাজ।হয়ত আপনি ভালো বই একটি লিখেছেন কিন্তু কোন এজেন্ট সেটি আগ্রহ প্রকাশ করল না ,তাহলে আপনি এগুতে পারবেন না ।কিন্তু সৌভাগ্যক্রমে এর একটি সমাধান রয়েছে Amajon.com এর মত ওয়েবসাইটের সার্ভিস নিয়ে আপনি নিজে আপনার বই নিজে প্রকাশ করতে পারবেন ।লেখক যারা স্ব-প্রকাশিত বই দিয়ে সফল হয়েছেন,তারা অনেক আগ্রহী হন বই লিখতে। তাই Passive Income এর উদাহরন হয়ে থাকতে পারে ।

৪)ইউটিউব থেকে আয়ঃ-ইউটিউবিং করে বাংলাদেশের অনেকেই প্রচুর টাকা ইনকাম করছে।ইউটিউব থেকে বিভিন্ন উপায়ে আয় করা যায়।যেমনঃ-অ্যাড দেখা,স্পন্সর করা,কোন কিছু রিভিউ করা।ইউটিউব থেকে আয় করতে হলে ভিডিও তেরি করতে হবে এবং তা একটি চ্যানেল খুলে পাবলিশ করতে হবে।একটি ভিডিও তৈরি করলে তা থেকে সারাজীবন Passive Income এর মাধ্যম হতে পারে।আপনার মাঝে ভিডিও তৈরির প্রবনতা থাকলে ইউটিউবিং করতে পারেন।

৫)ফেববুক পেজ খুলে আয়ঃ-ফেসবুকিং করা যদি হয় আপনার নেশা,তবে এই নেশাকেই পেশাতে রুপান্তরিত করতে পারেন খুব সহজেই।প্রথমেই একটি ফেসবুক পেজ খুলতে হবে।এরপর ইউটিউব এর মত ভিডিও তৈরি করে সেই পেজে আপলোড করতে হবে।তবে এখানে একটি সুবিধা হচ্ছে ইউটিউবের জন্য তৈরি ভিডিও এখানে আপলোড করতে পারবেন।তবে ভিডিও টি আপনার তৈরি হতে হবে।

আপনি যদি Passive Income করতে চান তবে উপরের ১০টি বিজনেস আইডিয়া থেকে আপনার মনের মত য়ে কোন আইডিয়াটি বেছে নিয়ে শুরু করতে পারেন।

2 Comments

Post a Comment
Previous Post Next Post