ছোটবেলা থেকে যে মিথ্যাগুলোকে আপনি এখনো সত্যি ভেবে বিশ্বাস করে আসছেন!!! জেনে নিন আসল সত্যি কী????

স্বাভাবিকভাবেই আমরা ছোটবেলা থেকে যেসব গল্প শুনে থাকি সেগুলোকে আমরা মনে প্রানে বিশ্বাস করি সেটা কোন কুসংষ্কার হওয়া সত্তেও!!কিন্তু সত্য বলতে ছোটবেলা থেকে আমরা যে গল্পগুলো বেশির ভাগই সত্য নয়।ছোটবেলা থেকে শুনতে শুনতে মনে প্রানে বিশ্বাস করেন যে,এটাই সত্য!কিন্তু বাস্তবে সেটা সত্য নয়।আজকের এই ব্লগে আমরা আলোচনা করব এমনি কিছু মিথ্যা কথা যেগুলো আপনি ছোটবেলা থেকে শুনে আসছেন সত্য হিসাবে,আর এগুলোর প্রকৃত সত্যতা জানার পর আজ থেকে আপনি এগুলো আর বিশ্বাসই করতে চাইবেন না।যদিও সত্যকথা গুলোই আমরা জানাব।চলুন তাহলে জেনে নিই কি সেই মিথ্যাগুলো যেগুলো আপনি এতোদিন সত্যি ভেবে আসছেন???


যে মিথ্যাগুলোকে আপনি এখনো সত্যি ভেবে বিশ্বাস করে আসছেন!!! জেনে নিন আসল সত্যি কী????
যে মিথ্যাগুলোকে  এখনো সত্যি ভেবে আসছেন!!!


যে মিথ্যাগুলোকে আপনি এখনো সত্যি ভেবে বিশ্বাস করে আসছেন!!!

১)Shaving:-আপনারা হয়ত শুনে থাকবেন বেশি বেশি সেভ করলে দাড়ি ঘন,কালো এবং মোটা হয় এবং এই কথাগুলো আমরা ছোটবেলা থেকেই শুনে আসছি!! আর এজন্য ছোটবেলা থেকে দাড়ি না উঠা থেকেই সেভ করে থাকি। কিন্তু দ্রুতভাবে ঘন হয়ে বের হওয়ার জন্য সেভ করার কোন প্রয়োজন নেই,দাড়ির কালো রং এবং ঘনত্ব নির্ভর করে আমাদের শারিরীক বিকাশের উপরে।যার শারিরীক বিকাশ যত বেশি হয় তার চুলও তেমনি হয়।তাই আজ থেকে মোটা ঘন,কালো দাড়ি গজানোর জন্য ঘন ঘন সেভ করে টাকা অপচয় করা বন্ধ করুন।

২)Pain after Exercise:- আপনারা হয়ত শুনে থাকবেন ব্যায়ামের পর যদি শরীরে ব্যাথার সৃষ্টি হয় তাহলে সেটা পারফেক্ট ব্যায়াম,এতে করে আমাদের শরীরের অনেক উপকার হয়।তাই আমরা ব্যায়াম করার সময় অতিরিক্ত ব্যায়াম করে থাকি।কিন্তু ব্যায়ামের পরে শরীরে ব্যাথা হওয়ার কোন প্রয়োজনই নেই।অতিরিক্ত ব্যায়ামের ফলে আমাদের পেশিতে ব্যাথার সৃষ্টি হয় এবং এটা ক্ষতিকর আমাদের জন্য।তাই আপনারা যখন এরপর থেকে ব্যায়াম করে থাকেন তবে অবশ্যই অতিরিক্ত ব্যায়াম করা থেকে বিরেত থাকবেন।

আরও পড়ুনঃ-জীবনকে বুঝতে হলে আপনাকে যে তিনটি জায়গায় যেতে হবে!! 

৩)Watching TV:-টিভি কী খুব কাছে থেকে আমাদের চোখের জন্য ক্ষতিকর??বোশর ভাগ মানুষ এটা মনে করে থাকে যে টিভি খুব কাছে থেকে দেখলে আমাদের চোখের ক্ষতি হয!!কিন্তু মানুষের এই ধারনাটি বৈজ্ঞানিক কোন প্রমান নেই এবং কোন বিজ্ঞানী আজ পর্যন্ত টিভি খুব কাছে থেকে দেখার কারনে চোখের কোন ক্ষতি সম্পর্কে খুজে পায়নি।তবে খুব কাছে থেকে টিভি দেখা বাচ্চাদের জন্য খুব একটি খারাপ অভ্যাস,আর তাই মা-বাবা এই খারাপ অভ্যাস ত্যাগ করানোর জন্য ছোটবেলা থেকেই এসব কথা বলে থাকে।কিন্তু এগুলোকে আজকে মানুষ চোখের ক্ষতির সাথে সম্পর্কিত করে ফেলেছেেআর এগুলোকে মানুষ এখন সত্যি মনে করে,তবে এগুলোর বৈজ্ঞানিক কোন প্রমান নেই।

৪)Eatting & Exercise:-বেশিরভাগ মানুষ মনে করে ব্যায়াম করার সময় কোন প্রকার খাবার খাওয়া যাবেনা।কিন্তু মানুষের এই ধারনা সম্পূর্ন ভুল।এমনকি অলিম্পিকগেমের জন্য যারা প্রাকটিস করে থাকে,তারাও ব্যায়ামের সময় তাদের ডায়েট বজায় রাখে।তবে আপনি ব্যায়ামের সময় কি খাবার খাচ্ছেন তা ভালভাবে দেখে নিতে হবে।কারন এমন কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো ব্যায়াম করার সময় খাওয়া যাবেনা,আবার এমন কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো ব্যায়াম করার সময় অবশ্যই খেতে হবে,এবং এই নিয়ম গুলো আমাদের মেনে চলা উচিৎ।

আরও পড়ুনঃ-জীবনে সুখি হওয়ার ৩ টি উপায় 2021!!!

৫)Soap Kills Bacteria:-আমরা প্রতিনিয়ত টিভিতে বিভিন্ন ধরনের সাবানের বিজ্ঞাপন দেখে থাকি,আর এই বিজ্ঞাপন গুলোতে বারবার বলে থাকে যে  সাবান ব্যাক্টেরিয়াকে ধ্বংস করে।কিন্তু এসব সাবান কোভাবেই এধরনের জীবানু   মারতে পারেনা,তবে তারা পুরোপুরিভাবেও মিথ্যা বলেনা।সাবান আমাদের হাতে বা শরীরে লেগে থাকা জীবানুকে ওয়াশ করতে পারে।সাবান দিয়ে যদি শরীর ও হাত-পা ওয়াশ না করা হয় তবে এগুলো আমাদের শরীরে নানারকম রোগব্যাধি সৃষ্টি করে।অর্থাৎ সাবান আমাদের শরীরে থাকা জীবানুকে ওয়াশ করতে পারে ঠিকই কিন্তু মারতে পারেনা।

৬) 8 Hours Sleep:-আমাদের মাঝে বেশির ভাগ মানুষ মনে করে একজন পূর্নবয়ষ্ক মানুষের জন্য অন্ত্যত ৮ ঘন্টা ঘুমাতে হবে।কিন্তু এটা বিশ্বাস করা সম্পূর্ন বোকার মত একটি ধারনা।শারিরীকভাবে সুস্থ্য থাকার জন্য  আমাদের অবশ্যই ঘুমাতে হবে,কিন্তু সবার জন্য একই পরিমান ঘুমানোর কোন প্রয়োজন নেই।একেক মানুষের শারিরীক সক্ষমতা অনুযায়ী তার ঘুমের চাহিদা একেক রকম হতে পারে।উদাহরন হিসাবে একজন অসুস্থ মানুষকে অনেক সময় ঘুমাতে হবে,আবার অনেক স্বাস্থ্যবান মানুষ বা যুবকের জন্য অল্প কয়েক ঘন্টা ঘুমই যথেষ্ট তার শারিরীক সক্ষমতা ফিরে পাবার জন্য।মনে রাখতে ৮ ঘন্টা হল গর সময়,তাই আপনারা নিজেই ঠিক করে নিবেন আপনার শারিরীত সক্ষমতা অনুযায়ী আপনাকে কতক্ষন ঘুমাতে হবে???

আরও পড়ুনঃ-মানুষের মন বোঝার সহজ উপায় গুলো কি কি??

৭)Water & Electricity:-আমরা সবাই মনে করি পানি এবং বিদ্যুতের সংমিশ্রন মারাত্মক বিপদজনক।কিন্তু আপনারা জেনে থাকবেন পানি নিজে থেকে বিদ্যুৎ পরিবাহী পদার্থ নয়।আমরা যদি বিশুদ্ধ পানির কথা বলি তাহলে বলতে হবে বিশুদ্ধ পানির অনুর কোন চার্জ থাকেনা,আর তাই বিশুদ্ধ পানিতে বিদ্যুৎ পরিবাহিত হয়ানা।এই ধরনের তরল পদার্থকে ডাইলেট্রিক বলা হয়ে থাকে,এবং এটা মারাত্মক বিপদজনকও নয়।কিন্তু এইধরনের পানি সত্যিই খুব দুর্লভ।দূষিত পানি বা যে পানিতে কোন কিছু মিশে থাকে সেই পানি বিদ্যুৎ পরিবাহী হয়ে মারাত্মক বিপদজনক হয়ে উঠে।

৮)Urinating on a Jellyfish sting:- একটি টিভি শোতে দেখানো হয় কয়েক বন্ধু মিলে সমুদ্র-সৈকতে গোসল করতে নামে,কিন্তু হটাৎ করেই তাদের এক মেয়ে বন্ধুকে জেলিফিশ কামুড় দেয়,আর সেই কামুড়ের যন্ত্রনা কমানোর জন্য একবন্ধু কামুড়ের জায়গায ইউরিন ত্যাগ করে,এবং সঙ্গে সঙ্গে সেখানকার যন্ত্রনা কমে যায়। আর এই শো টি দেখার পর বহিঃবিম্বের মানুষের মাথায় এই ধারনাটি চলে আসে।এখন তারা এটাকেই সত্যি মনে করে। কিন্তু বাস্তবদা কোন টিভি শো নয়,কারন ইউরিন কোন ভাবেই জেলিফিশের বিষকে নিষ্ক্রিয় করতে পারেনা।আর তাই জেলিফিশের কামুড়ের স্থানে যদি ইউরিন ত্যাগ করা হয় তবে সেখানে খারাপ প্রভাব পড়ার সম্ভবনাই বেশি থাকে।

আরও পড়ুনঃ-এটা দেখার পর সকালে উঠতে বাধ্য হবেন!!!!

৯)Bat/Flying Fox:-আপনা মনে করতে পারেন বাদুড় খুব ভালোভাবে দেখতে পারেনা বা অন্ধ।কিন্তু আপনাদের এই ধারনাটিও সত্যি নয়।কারন বাদুড় আমাদের মত তাদের চোখ সম্পূর্নভাবে খুলতে পারেনা।বাদুড় দুইটি পদ্ধতি অবলম্বস করে দেখে থাকে ।এক পদ্ধতিতে তারা দিনে দেখে থাকে আরেক পদ্ধতির মাধ্যমে তারা রাতে দেখে থাকে।দিনে এবং রাতে তারা দুইরকম ভাবে দেখে থাকে।তবে বাদুড় সম্পূর্ন অন্ধ এটা বলাটা সম্পূর্ন ভুল হবে।কারন বাদুড় সামান্য হলেও চোখে দেখতে পায়,তবে দূরের পথে চলার জন্য বাদুড় শদ্ব তরঙ্গ ব্যবহার করে থাকে।

এগুলোই আমরা সত্যি বলে জেনে এসেছি এতোদিন.কিন্তু আজকের পর থেকে জানবেস এগুলো সম্পূর্ন মিথ্যা।যদি আজকের এই ব্লগটি আপনার ভালো লেগে থাকে বা এই ব্লগটির মাধ্যমে আপনি সামান্য হলেও কিছু জানতে পারেন তবে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করবেন।আপনার একটি শেয়ারের জন্য অনেকেই এই সত্যিনামক মিথ্যাগুলোর সঠিক সত্যতা জানতে পারবে।

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post