কিভাবে Android app বানানো যায়?2021 এন্ড্রোয়েড অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট সহজভাবে শিখুন

কিভাবে Android app বানানো যায় শিখুন

 Android app আমরা সবাই চিনি।কিন্তু কিভাবে Android app বানানো যায়,তা হয়ত অনেকেরই অজানা।বর্তমান যুগে Android এর ব্যবহার বেশি এবং সেই সাথে Android app এর ও চাহিদা বেশি।আর এসব Android app কি কাজে লাগে তা তো সবাই জানি এবং সেগুলো আমরা প্রতিনিয়ত ব্যবহার করে থাকি।তাই আজ আমরা জানব “কিভাবে Android app বানানো যায়”।চলুন তাহলে জেনে নিইঃ-

কিভাবে Android app বানানো যায়?2021 এন্ড্রোয়েড অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট সহজভাবে শিখুন
কিভাবে Android app বানানো যায়?


আজকে আমরা যা যা শিখব/জানব

১)Android কি?
২)App কি?
৩)App এর প্রকারভেদ গুলো কি?
৪) Android app কি?
৫) Android app কত প্রকার ও কি কি?
৬)স্ট্যাটিক অ্যাপ ও ডাইনামিক অ্যাপের মধ্যে পার্থক্য কী?
৭)কিভাবে Android app বানাবেন?
৮)এন্ড্রোয়েড অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট কোর্সটি কোথায় থেকে শিখবেন?
৯)Android app এর চাহিদা কেমন?
১০)এন্ড্রোয়েড অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট শিখতে কতদিন সময় লাগবে?
১১)Android app তৈরি করে কত টাকা ইনকাম করা যায?
১২)এন্ড্রোয়েড অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট কাজটি শেখার পর কাজ কোথায় পাবেন?

Android কি?

Android হলো স্মার্টফোনের জন্য তৈরি একধরনের অপারেটিং সিস্টেম,যেখানে কিছু মিডলওয়্যার ও াকছু বিল্ড-ইন অ্যাপ্লিকেশন থাকে।ডেকস্টপ বা ল্যপটপ যেমন Windows XP, Windows 7 ,Windows 10,Liniux নামের বিভিন্ন বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেমে চ্যলে,তেমনি স্মার্টফোন বা মোবইল ফোনের একটি অপারেটিং সিস্টেমের নাম Android। Android অপারেটিং সিস্টেমটি বাজারে নিয়ে আসে গুগল।

App কি?

আজকের দিনে App যদিও নতুন কোন শদ্ব নয়,কিন্তু কয়েক বছর ধরে বিশেষ করে স্মার্টফোন তৈরির সময় থেকে App শব্দটির আনাগোনা শুরু হয়েছে।App আমরা সবাই ব্যবহার করি বা এটি সম্পর্কে আমরা সবাই জানি,কিন্তু অনেকেই আমরা ”App কি?”এর সংজ্ঞা বা কাকে বলে সেটা বলতে পারব না।তাই আজ আমরা App এর সংজ্ঞা জানব।App শব্দটি মূলত Application শব্দটির সংক্ষিত রুপ।App একধরনের সফটওয়্যার যা আলাদা আলাদা প্লাটফর্মে রান করে থাকে।অ্যাপ আর সফটওয়্যার একই জিনিস বুঝায়,কিন্তু আজকের মডার্ন টাইপের সফটওয়্যার বা কম্পিউটার পোগ্রামগুলোকে অ্যাপ বলা হয়। 

App এর প্রকারভেদ গুলো কি?

App বা Application এর প্রকারভেদ মূলত তিনটি।যেমন মেবাইল অ্যাপ্লিকেশন,ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশন ও ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন।

 মেবাইল অ্যাপ্লিকেশনঃ- যে অ্যাপগুলো মোবাইলে ব্যবহারের জন্য তৈরি করা হয় তাকে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন বলে।যেমনঃ- Camera, Messenger, Facebook, twitter, Calculator, Photo Editing ইত্যাদি।

ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশনঃ-যে অ্যাপগুলো ল্যাপটপ বা ডেক্সটপ কম্পিউটারে ব্যবহারের জন্য তৈরি করা হয় তাকে ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশন বলে।যেমনঃ-Microsoft Word, Microsoft excel, Microsoft Power Point, Photoshop CC, Photoshop Illustrator ইত্যাদি।
 
ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনঃ-ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন এমন একটি অ্যাপ্লিকেশন যার মাধ্যমে কোন কিছু ডাউনলোড বা ইন্সটল করা ছাড়াই ওয়েব সার্ভার থেকে ওয়েব ব্রাউজারে চালানো যায়।ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন সাধারন অ্যাপ্লিকেশন এর মতই কাজ করে এখানে শুধু একটিই পার্থক্য সেটা হল এই  অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারের সময় ইন্টারনেট কানেকশন চালু রাখতে হয়।যেমনঃ-Crome Browser, firefox Browser, Youtube, Shopping Related App ইত্যাদি।

Android app কি?

Android অপারেটিং সিস্টেমে বা Android স্মার্টফোনে যেসব অ্যাপ ব্যবহার করা হয় বা ব্যবহারে জন্য রি করা হয় তাকে Android app বলে।সহজ কথায় আমাদের ৈএন্ড্রোয়েড ফোনে যেসব অ্যাপ ব্যবহার করি সেই অ্যাপগুলোকেই Android app বলা হয়।যেমনঃ- উপরের মোবাইল অ্যাপগুলোই এর উদাহরন।

কিভাবে Android app বানানো যায়?2021 এন্ড্রোয়েড অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট সহজভাবে শিখুন
কিভাবে Android app বানানো যায়?


Android app  কত প্রকার ও কি কি?

Android app মূলত দুই প্রকার হয়ে থাকে।যেমনঃ- স্ট্যাটিক অ্যাপ এবং ডাইনামিক অ্যাপ।

স্ট্যাটিক অ্যাপ ঃ-যে অ্যাপগুলো ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়াই ব্যবহার করা যায় তাকে স্ট্যাটিক অ্যাপ বলা হয়।যেমনঃ-Camera, Calculator, Photo Editing ইত্যাদি।

ডাইনামিক অ্যাপঃ-যে অ্যাপসগুলো ব্যবহার করতে ইন্টারনেট দিতে হয় অর্থাৎ েইন্টারনেট ছাড়া যেসব অ্যাপ ব্যবহার করা যায় না সে সমস্ত অ্যাপগুলোকে ডাইনামিক অ্যাপ বলে।যেমনঃ-Messenger, Facebook, twitter ইত্যাদি।এসব অ্যাপ তৈরি করতে ওয়েব ডেভেলপার হতে হবে।কারন অধিকাংশ ডাইনামিক অ্যাপস এর কন্ট্যেলটি একটি ওয়েব অ্যাডমিন ড্যাশবোর্ড থেকে করা হয়।

স্ট্যাটিক অ্যাপ ও ডাইনামিক অ্যাপের মধ্যে পার্থক্য কী?

১)স্ট্যাটিক অ্যাপস সাধারনত ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়াই ব্যবহার করা যায়।আর ডাইনামিক অ্যাপস ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়া ব্যবহার করা যায় না।
২)স্ট্যাটিক অ্যাপস তৈরি করতে কয়েকটি প্রোগ্রামিং ভাষা শিখতে হয়।আর ডাইনামিক অ্যাপ তৈরি করতে হলে পোগ্রামিং ভাষার পাশাপাশি ওয়েব ডেভেলপমেন্টও শিখতে হবে।
৩)স্ট্যাটিক অ্যাপের কন্ট্রোল অ্যাপ এডমিন ড্যাশবোর্ড থেকে করা হয়।আর ডাইনামিক অ্যাপের কন্ট্রোল অধিকাংশ ওয়েব অ্যাডমিনের ড্যাশবোর্ড থেকে করা হয়।

কিভাবে Android app বানাবেন?

ফেসবুক, মেসেন্জার,ইউটিউব,ক্যামেরা,বিকাশ,নগদ,ইন্সটাগ্রাম সহ বিভিন্ন ধরনের  Android app আমরা প্রতিনিয়ত ব্যবহার করে চলেছি।এবং সেই সাথে এসব Android app ব্যবহারের জন্য আমরা পারদর্শি হই।কিন্তু কখনও আমরা ভেবে দেখি না যে কিভাবে Android app তৈরি হয়,কেন তৈরি,কে তৈরি করেেএসব নিয়ে।এসব অ্যাপ কেউ না কেউ তৈরি অবশ্যই করেছে ,এমনি এমনি তো আর তৈরি হয় নি।হ্যা আপনি হয়ত নিশ্চয়ই বুজেছেন যে একজন অ্যাপ ডেভেলপার এসব অ্যাপ তৈরি করে?কিন্তু কিভাবে তৈরি করে সেটা কখনও ভেবেছেন?আপনিও একজন ওয়েব ডেভেলপার হয়ে এসব অ্যাপস বানাতে পারেন।আর এজন্য আপনাকে কিছু পোগ্রামিং ভাষা শিখতে হবে।পোগ্রামিং ভাষা আমাদের মুখের ভাষার মত সহজ কোন ভাষা নয়।এটি শিখতে হলে আপনার মাঝে অবশ্যই ধৈর্য নামক গুনটি থাকতে হবে।তবেই আপনি  পোগ্রামিং ভাষা শিখে একজন Android app ডেভেলপার হতে পারবেন।

Android app  বানাতে হলে কি কি ভাষা শিখতে হবে?

এতক্ষনে আপনি জেনে গেছেন যে Android app বানাতে বা তৈরি করতে হলে কিছু পোগ্রামিং ভাষা শিখতে হয়।চলুন তাহলে এখন আমরা জেনে নিই Android app বানাতে কি কি পোগ্রামিং ভাষা শিখতে হবে?
1.Java
2.Sql
3.Xml
4.Andoriod Studio Software
5.Web Development
6.And More apps Development Softwares if needed.

উপরিক্ত এই ৬ টি বিষয়ে আপনি দক্ষ্যতা অর্জন করতে পারেন তাহলে আপনি একজন ওয়েব ডেভেলপার হতে পারবেন এবং যেকোন Android app বানাতে বা তৈরি করতে পারবেন।

এন্ড্রোয়েড অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট কোর্সটি কোথায় থেকে শিখবেন?

 Android app ডেভেলপমেন্ট কোর্সটি শেখার জন্য আমরা বিভিন্ন উপায় খুজে থাকি।কিন্তু মনঃস্থির করতে পারি না ঠিক কোথায় থেকে শিখব।কেউ কেউ বই থেকে,আবার কেউ ট্রেনিং সেন্টার থেকে শেখার চেষ্টা করে থাকি।কিন্তু আমরা ৩টি উপায়ে খুব সহজ ভাবে  Android app ডেভেলপমেন্ট কোর্সটি শিখতে পারি।উপায় তিনটি জানতে হলে এখানে ক্লিক করুন।কারন আগের আর্টিকেলে আমরা  বিষয়ে আলোচনা করেছি,সুতরাং এখানে একই কথা লিখে আর্টিকেলটি বড় করতে চাইনা।

আরও পড়ুনঃ-

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখব 2021?/How to learn freelancing in Bangladesh?

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট কী??  কিভাবে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখব??

ওয়েব ডিজাইন কী??কিভাবে ওয়েব ডিজাইন শিখব??

ফ্রিল্যান্সিং এ কোন কাজের চাহিদা বেশি-২০২১?/ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ সমূহ কী কী??

 Android app এর চাহিদা কেমন?

আমরা সবাই এখন স্মার্টফোন ব্যবহার করি এবং বেশিরভাগ স্মার্টফোনই Android অপারেটিং সিস্টেমে পরিচালিত।আমরা আমাদের মোবাইলে বিভিন্ন ধরনের অ্যাপ ব্যবহার করে থাকি।আর এসব অ্যাপ আমরা বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে থাকি।আমরা একটু খেয়াল করলে দেখব বিভিন্ন কোম্পানি তাদের সেবা গ্রাহককে সহজে প্রদানের জন্য অ্যাপ তৈরি করিয়ে নিচ্ছে।যেমন বিকাশ, রকেট, নগদ, দারাজ,সহ বিভিন্ন কোম্পানি।এরকম বহু কোম্পানি আছে যারা অ্যাপ বানিয়ে নিচ্ছে।গুগল প্লে স্টোরে বহু সংখ্যক অ্যাপ থাকা স্বেত্তেও প্রতিদিন নতুন নতুন কিছু অ্যাপ যোগ হচ্ছে।এবং প্রতিনিয়ত তা বেড়েই চলেছে।এটি থেকেই আমরা বুঝতে পারছি যে বাজারে Android app এর চাহিদা কেমন রয়েছে।

এন্ড্রোয়েড অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট শিখতে কতদিন সময় লাগবে?

আগে আমরা জেনেছি যে Android app  ডেভেলপমেন্ট পুরোপুরি শিখতে হলে ৬ টি বিষয়ে দক্ষ্যতা অর্জন করতে হবে।এই ছয়টি বিষয়ের মধ্যে ৫ টি বিষয় শিখতে আপনার ৫-৬ মাস লাগতে পারে।এবং প্রতিদিন ৫-৬ ঘন্টা এগুলো চর্চা করতে হবে।৫-৬ মাসে আপনি স্ট্যাটিক অ্যাপস ডেভেলপার হতে পারবেন।কিন্তু ডাইনামিক অ্যপিস ডেভেলপার হতে হলে আপনার বেশি সময় লাগবে ।কারন আপনাকে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট কোর্সটি শিখতে হবে।ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখতে কতদিন লাগে তা জানতে নিচে দেওয়া লিংকে ক্লিক করুনবা এখানে ক্লিক করুন।


একটি Android app তৈরি করে কত টাকা ইনকাম করা যায?

কত টাকা ইনকাম করা যায় এটা বলা সম্ভব নয়।কারন কাজের উপর ভিত্তি করে ইনকাম হয়ে থাকে।একটি ই-কমার্স ওয়েব সাইটের অ্যাপস তৈরি করে দিতে পারলে আনুমানিক ৩০০০ ডলার পর্যন্ত ইনকাম করা সম্ভব যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় দুই লক্ষ্য পঞ্চাশ হাজার টাকা।

এন্ড্রোয়েড অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট কাজটি শেখার পর কাজ কোথায় পাবেন?

Android app ডেভেলপমেন্ট কাজটি শেখার পর আপনাকে আপনাকে কাজ পাবার বিষয়ে চিন্তা করতে হবে না।কারন আপনি অ্যাপ তৈরি করবেন এবং তা গুগল প্রে স্টোরে দিবেন এবং আপনার অ্যাপস যত বেশি ডাউনলোড হবে আপনার ইনকাম ততই বাড়তে থাকবে।যতদিন গুগলে আপনার অ্যাপস থাকবে ততদিনই আপনার ইনকাম হবে।এছাড়াও আপনি বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে বায়ারকে অ্যাপস তৈরি করিয়ে দেওয়ার মাধ্যমে ইনকাম করতে পারেন।

শেষকথা

আশা করি আজকের আর্টিকেলটির মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই ‘কিভাবে Android app বানানো যায়?’বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন।যদি বুঝতে কোন সমস্যা হয় তবে আমাদের সাথে অবশ্যই যোগাযোগ করবেন আমরা আমাদের সাধ্যমত আপনাকে চেষ্টা করব।আর আর্টিকেলটি অবশ্যই শেয়ার করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিবেন বিষয়টি।








Post a Comment (0)
Previous Post Next Post